কবুতরের জ্বর Fever of Pigeon

“মানুষ যেভাবে কল্যাণ কামনা করে, সেভাবেই অকল্যাণ কামনা করে। মানুষ তো খুবই দ্রুততা প্রিয়।“ (সূরা বনী ইসরাঈল:আয়াত-১১) তুষার ভাই একজন কবুতর খামারি, তিনি অন্য খামারির মত একটু বেশী বুঝে থাকেন। একদিন আমাকে জানালেন যে তার কবুতরের অবস্থা খারাপ কেন? তিনি জানালেন যে তার কবুতরের জ্বর Fever of Pigeon হয়েছিল। আর তার ঔষধ হিসাবে তিনি প্যারাসিটামল খাওয়ায় দিয়েছেন। ফলে কবুতর এখন বমি করছে আর লোম ফুলিয়ে বসে আছে। এখন কি করা যায়। আমি তাকে জিজ্ঞাস করলাম তার যে জ্বর হয়েছে আপনি কিভাবে বুঝলেন? তিনি আত্মবিশ্বাসের সাথে বললেন যে, গায়ে তাপ অনেক বেশি কত বেশী এই ধরেন ১০০ ডিগ্রি ফারেনহাইট এর ও বেশী। যাইহোক, যদিও সেটা তিনি না মেপেই আন্দাজের উপর বলেছিলেন। উনার মত আমাদের দেশে ৯৫% খামারির কবুতরের জ্বর সম্পর্কে সঠিক ধারনা নাই। আর এক্ষেত্রে প্যারাসিটামল খারাপ ভুমিকা পালন করে থাকে। এটি কিডনি ও লিভারের প্রভূত ক্ষতি সাধন করে, সকল জীবন্ত প্রাণীদের জন্য, যদিও আমাদের ক্ষেত্রে এটা জ্বরের প্রাথমিক ঔষধ হিসাবে প্রচুর ব্যাবহৃত হতে দেখা যায়। কিন্তু এর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে আমাদের কমই ধারনা আছে। (বিস্তারিত…)
বিস্তারিত পড়ুন about কবুতরের জ্বর Fever of Pigeon
  • 0